করোনা পরীক্ষার পিসিআর মেশিন খুলনায়

খুলনা মেডিকেল কলেজে এসে পৌঁছেছে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য পিসিআর(পলিমারজ চেইন রিঅ্যাকশন) মেশিন। গতকাল সোমবার দুপুরে ঢাকা থেকে মেশিনটি কলেজে এসে পেঁৗঁছে। এটি স্থাপনের জন্য একটি বিশেষজ্ঞ টিম গতরাতে খুলনায় আসার কথা থাকলেও এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আসেনি। আজ মঙ্গলবার দিনের যে কোন সময় টিমের সদস্যরা খুলনায় পৌঁছতে পারেন বলে কলেজের একটি সূত্র জানিয়েছে। খুলনায় এসেই তারা মেশিনটি স্থাপন প্রক্রিয়া শুরু করবেন। খুমেক’র তৃতীয় তলার মাইক্রোবায়োলজী বিভাগে মেশিনটি স্থাপনের জন্য স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী শনিবার থেকে এ মেশিন দিয়ে করোনা সনাক্তকরণের জন্য ‘পিসিআর’ পরীক্ষা করা হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন।
খুলনা মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন(বিএমএ) এবং স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ(স্বাচিপ) খুলনার সাধারণ সম্পাদক ডা: মো: মেহেদী নেওয়াজ বলেন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন কেন্দ্রীয় ওষুধ সংরক্ষণাগার(সিএমএসডি) থেকে দেয়া পিসিআর মেশিনটি গতকাল সোমবার দুপুরে খুলনা মেডিকেল কলেজে এসে পৌঁছেছে। আজ থেকে মেশিনটি কলেজের তৃতীয় তলার মাইক্রোবায়োলজী বিভাগে স্থাপনের কার্যক্রম শুরু হতে পারে। এজন্য একটি বিশেষজ্ঞ টিম ঢাকা থেকে আসছে। ২/১দিন সময় লাগবে মেশিনটি স্থাপনের জন্য। খুলনা মেডিকেল কলেজ এবং খুমেক হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজী ও প্যাথলজী বিভাগের চিকিৎসক ও কারিগরি টিমের সদস্যদের গত দু’দিন ধরে অনলাইনের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। মেশিনটি স্থাপনের পর আগামী শনিবার থেকে করোনাভাইরাসের পিসিআর পরীক্ষা শুরু হতে পারে বলেও তিনি জানান।
কলেজের মাইক্রোবায়োলজী বিভাগের প্রধান ও করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ফোকাল পার্সন ডা: শাহনাজ পারভীন বলেন, মেশিনটি স্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্ট কোম্পানীর প্রকৌশলী আজ মঙ্গলবার এসে মেশিন স্থাপনের কাজ শুরু করতে পারেন। বৃহস্পতিবার নাগাদ মেশিনটি কলেজের তৃতীয় তলার মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে স্থাপন হতে পারে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
কলেজের প্যাথলজী বিভাগের ইনচার্জ ডা: মাহবুবুর রোশেদ বলেন, এ মেশিনটি দিয়ে পিসিআর পরীক্ষার জন্য প্রচুর পরিমাণে ‘টেকনিক্যাল পার্সন’ দরকার। এজন্য খুমেক ও খুমেক হাসপাতালের দু’টি বিভাগের সকল কারিগরি সদস্যকে নিয়ে গতকাল পর্যন্ত অনলাইনে প্রশিক্ষণ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রতিদিন বিকেল তিনটা থেকে সাড়ে চারটা পর্যন্ত এ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ দিয়ে বলা হয় কিভাবে করোনা সন্দেহের রোগীদের শরীর থেকে স্যাম্পল সংগ্রহ করতে হবে।
খুমেক’র মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট(ল্যাব) মো: আনোয়ার হোসেন বলেন, যেহেতু এটি একটি ছোঁয়াচে রোগ সে কারণে কেউ ইচ্ছা করলেই সরাসরি এসে রক্ত ও কফ দিয়ে পরীক্ষা করাতে পারবেন না। বরং প্রশিক্ষিত ব্যক্তিরা নির্দিষ্ট পিপিই(পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট) পরিধান করে সন্দেহজনক ব্যক্তির শরীর থেকে স্যাম্পল সংগ্রহ করে আনবেন। কিভাবে স্যাম্পল সংগ্রহ করতে হবে, স্যাম্পল সংগ্রহের পর ল্যাব টেকনোলজিষ্ট কিভাবে নিজেকে ও আশপাশের লোকদের সুরক্ষিত রাখবেন সবকিছুই গত দু’দিন ধরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণে জানানো হয়। আবার পিসিআর পরীক্ষার জন্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের এডভাইস লাগবে। কোনক্রমেই সেল্ফ(ডাক্তারের এডভাইস ছাড়া) পরীক্ষার সুযোগ নেই।
খুলনা মহানগরীর করোনার জন্য আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হয়েছে খুলনা ডায়াবেটিক হাসপাতালকে। সেখানে এখনও রোগী ভর্তি শুরু হয়নি। গতকাল পর্যন্ত গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে দু’টি আইসিইউ বেড এবং খুমেক হাসপাতাল, জেনারেল হাসপাতাল, আদ্বদীন আকিজ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে কিছু সাধারণ বেড নিয়ে আইসোলেশন ইউনিটটিতে একশ’ বেড প্রস্তুত করা হয়েছে বলে খুলনার সিভিল সার্জন ডা: সুজাত আহমেদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, শুধুমাত্র করোনা সনাক্ত রোগীদেরই এ ইউনিটে ভর্তি করা হবে। আর সন্দেহজনক রোগীদের পূর্বের ন্যায় খুমেক হাসপাতালের আইসিইউ ওয়ার্ডের করোনা ইউনিটে রেখে চিকিৎসা দেয়া হবে।
অপরদিকে, গতরাত পৌনে ১১টার দিকে খুলনা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা: মো: আব্দুল আহাদ বলেন, পিসিআর মেশিনটি স্থাপনের জন্য বিশেষজ্ঞ টিম আজ মঙ্গলবার খুলনায় নাও পৌঁছতে পারে। কেননা টিমের সদস্যরা বর্তমানে রাজশাহীতে অবস্থান করছেন। রাজশাহী মেডিকেলের পিসিআর মেশিনটি স্থাপন হলেই কেবল তারা খুলনায় আসবেন। সে ক্ষেত্রে আজকের মধ্যে রাজশাহীর মেশিন স্থাপন হলেই তারা সেখান থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হবেন। অবশ্য মেশিন আসলেও এখনও রুম রেডি হয়নি এবং এসি’রও সংস্থান হয়নি। মেশিনটি বসাতে গিয়েও অন্য কোন সমস্যাও দেখা দিতে পারে। সে ক্ষেত্রে সব মিলিয়ে শনিবার না হলেও রোববার নাগাদ মেশিনটি দিয়ে পিসিআর পরীক্ষা শুরু করা সম্ভব হতে পারে বলে তিনি আশা করছেন।

Related posts

Leave a Comment